উখিয়া উপজেলার বিশেষ কিছু অংশকে রেড জোন ঘোষনা

প্রকাশিত: ১১:৪৩ পূর্বাহ্ণ, জুন ৭, ২০২০, 765 জন দেখেছেন

স্টাফ রিপোর্টার,কক্সবাজারঃ-    

বৈষিক মহামারি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে কক্সবাজার জেলার উখিয়া উপজেলাকে রেড, অরেঞ্জ এবং গ্রীন তিনটি জোনে বিভক্ত করা হয়েছে। তবে বিশেষ কিছু এলাকাকে ‘রেড জোন’ হিসেবে ঘোষণা করেচেন উখিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার। গতকাল বিকেলে একটি জরুরি বিজ্ঞপ্তি জারি করে এ ঘোষণা দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিকারুজ্জামান চৌধুরী।

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আজ রবিবার ৭ ই জুন থেকে ২১ জুন পর্যন্ত উখিয়া উপজেলা লকডাউনের আওতায় থাকবে। পাশাপাশি করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনার লক্ষ্যে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ সংক্রান্ত উপজেলা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক সমগ্র উপজেলা বাসীকে ‘রেড জোনের’ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সে জন্য উল্লেখিত সময়ে নিম্নে বর্ণিত নির্দেশনাগুলো যথাযথভাবে মেনে চলতে হবে।

নির্দেশনাগুলো হলো-

১) সকল প্রকার ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক, রাজনৈতিক গণজমায়েত নিষিদ্ধ থাকবে। জনসাধারণ বাধ্যতামূলক নিজ নিজ আবাসস্থলে অবস্থান করবে।

২) সকল ধরনের ব্যক্তিগত গাড়ি ও গণপরিবহণ বন্ধ থাকবে। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য বহনকারী যানবাহন শুধু রাত ৮টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত চলাচল করতে পারবে। করোনা মোকাবেলায় দায়িত্বপ্রাপ্ত বেসরকারি গাড়ি চলাচলের জন্য জেলা প্রশাসকের অনুমতি লাগবে।

তবে অ্যাম্বুলেন্স, রোগী পরিবহনের গাড়ি, স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী ব্যক্তিবর্গের (অনডিউটি) পরিবহন, করোনা মোকাবেলা ও জরুরি সেবা প্রদানকারী কর্তৃপক্ষের গাড়ি এ নিষেধাজ্ঞার আওতাভুক্ত নয়।

৩) সব ধরনের দোকানপাট, মার্কেট, হাট-বাজার ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। শুধু রোববার ও বৃহস্পতিবার কাঁচা বাজার ও মুদি দোকান স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত খোলা রাখা হবে। তবে ওষুধের দোকান এর আওতাভুক্ত নয়।

৪) শুধু করোনা মোকাবেলা ও জরুরি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান সীমিত পরিসরে খোলা থাকবে। অর্থনীতি সচল রাখতে শুধু রোববার ও বৃহস্পতিবার ব্যাংকসহ আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহ খোলা থাকবে। তবে সকল হাসপাতাল, চিকিৎসাসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ও কোভিড-১৯ মোকাবেলায় পরিচালিত ব্যাংকিং সেবা এর আওতাভুক্ত নয়।

৫) জরুরি সংবাদ সংগ্রহের জন্য নির্বাচিত গণমাধ্যমকর্মীদের কক্সবাজার প্রেসক্লাব কর্তৃক প্রদত্ত ছবিযুক্ত বিশেষ পরিচয় পত্র দৃশ্যমান অবস্থায় গলায় ঝুলানো থাকা লাগবে। করোনা মোকাবেলায় রেড জোনে নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবীদের উপজেলা নির্বাহী অফিসার, কক্সবাজার সদর কর্তৃক প্রদত্ত ছবিযুক্ত বিশেষ পরিচয় পত্র দৃশ্যমান অবস্থায় গলায় ঝুলানো থাকা বাধ্যতামূলক।

৬) রেড জোনে অবস্থিত সকল প্রকার গণপরিবহন টার্মিনাল অন্যত্র স্থানান্তর করতে হবে।

৭) প্রকাশ্য স্থানে কিংবা গণজমায়েত করে কোনো প্রকার ত্রাণ, খাদ্য সামগ্রী বা অন্য কোনো পণ্য বিতরণ করা যাবে না।

উল্লেখ্য : উখিয়া উপজেলায় এখন পর্যন্ত ১৩৯ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৬৬ জন শনাক্ত হয়েছে রাজাপালং ইউনিয়নে। এ ছাড়া পালংখালীতে ১৮ জন, জালিয়াপালং ১২ জন, রত্নাপালং ৯ জন, হলদিয়া পালং ২ জন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৩২ জন করোনা রোগী পাওয়া গেছে।