করোনা মোকাবেলায় গৌরীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাঃ জামাল উদ্দিনের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

প্রকাশিত: ৪:১৫ পূর্বাহ্ণ, জুন ২, ২০২০, 1782 জন দেখেছেন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  

কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাস দেশের পরিস্থিতি নাগালের বাহিরে। সারা বিশ্ব জুড়ে আতঙ্ক, শূন্যতা বিরাজ করছে। তখন একজন ত্যাগী চিকিৎসক জামাল উদ্দিন কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে পরিবার-পরিজন থেকে অনেকদিন যাবৎ দূরে আছেন। তিনি তার স্ত্রীসহ সন্তানদের নানার বাড়ি রেখে চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এতে তার কোন দুঃখ নেই। কেননা তিনি দেশের দুর্দিনে মানুষের পাশে দাঁড়াতে চায়।

ভৌগোলিক দিক থেকে দাউদকান্দি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ও নারায়ণগঞ্জের নিকটবর্তী অঞ্চল হওয়ায় করোনার হানা সহজ। এ কারণে ডাঃ জামাল উদ্দিনের ভূমিকায় আগে থেকেই সুকৌশল অবলম্বণ পাশাপাশি রেপিড রেসপন্স টিমের সভাপতি হিসেবে উপজেলায় কোয়ারান্টাইন নিশ্চিত করেছেন। এছাড়াও নমুনা সংগ্রহ করার কাজটিও যথা্যথ বাস্তবায়ন করেছেন। দূরবর্তী নবাগত কেউ প্রবেশ করলে করোনা মুক্ত রাখতে কোয়ারান্টাইনে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন।

দেশে এই প্রথম ডাঃ জামাল উদ্দিন রেপিড রেসপন্স টিমের প্রয়োজন হলে তাৎক্ষণিক টিম পাঠানো ও ভ্রাম্যমাণ করোনা নমুনা সংগ্রহ বুথ গৌরীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বাস্তবায়ণ করেছেন।

গত ৩ মাসে করোনাকালীন সময়ে ডাক্তারগণ প্রায় ১১,৩৬০ জন রোগীর চিকিৎসা দিয়েছেন। জরুরী বিভাগে প্রায় ২৯৬০ জন রোগীর চিকিৎসা নিশ্চিত করেছেন। ২৬৪ জন প্রসুতি মায়ের নরমাল ডেলিভারি নিশ্চিত করেছেন। ২৮ টি সিজারিয়ান অপারেশন নিশ্চিত করেছেন। ১০১ জন যক্ষা রোগীর চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
শতভাগ সেবা নিশ্চিতসহ কোনো প্রকার সেবা বন্ধ হয় নি।

বিভিন্ন কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়ায় তুলনামূলকভাবে দেশের অন্যান্য জেলা ও উপজেলা থেকে করোনার প্রাদুর্ভাব দাউদকান্দিতে অনেকাংশে কম। সে ক্ষেত্রে ডাক্তারের অবদান অনেক বেশি। তিনি গৌরীপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক হিসেবে নিয়োজিত আছেন।