করোনাকে জয়ী করা এক প্রশাসনিক সম্মুখ যোদ্ধা পিআইও কর্মকর্তা বোরহান উদ্দিন

প্রকাশিত: ৭:৪০ অপরাহ্ণ, মে ২১, ২০২০, 881 জন দেখেছেন

আলিফ মাহমুদ কায়সার কুমিল্লা প্রতিনিধিঃ- 

এই সেই করোনা যোদ্ধা বোরহান উদ্দিন। কুমিল্লার
চান্দিনার ফতেহপুর গ্রামের মৃত শিক্ষক আবদুল মোনায়েম মান্নান এর সুযোগ্য পুত্র।
বর্তমানে নরসিংদী রায়পুরা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) পদে কর্মরত আছেন।
গত ১৪এপ্রিল তার নমুনা পরীক্ষায় covid-19 ভাইরাস পজিটিভ শনাক্ত হওয়ার পর ১৪ দিন আইসোলেশনে থাকার পর হাসপাতালে ২টি নমুনা নেগেটিভ আসায় তাকে নরসিংদীর সিভিল সার্জন ডা.মোহাম্মদ ইব্রাহীম টিটন তাকে আইসোলেশন মুক্ত ঘোষনা করেন।

করোনা সংকট পরিস্থিতিতে মানবিক সহায়তা কার্যক্রমে এগিয়ে এসে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের পর ১৪ দিন আইসোলেশনে থেকে সুস্থ হয়ে পূর্ণ উদ্যোমে মানবিক সহায়তা কার্য ক্রমে আবার ঝাঁপিয়ে পড়েছেন। সরকারের প্রচেষ্টা গুলো যেন ব্যর্থ না হয় সেজন্য প্রচণ্ড কাজের চাপে এক একটা দিন পার করেন তিনি। লক ডাউনের ২ মাস হতে চললো অবুঝ মানুষ গুলো সরকার কে দিন দিন বহুচাপে ফেলে দিচ্ছে শুধু নিজের স্বার্থের কথা ভেবে।।মানছেনা সামাজিক দূরত্বের প্রধান হাতিয়ার শারীরিক দূরত্ব।

এমনকি ঘরে থাকার আদেশ বের হবার নিষেধ বার্তা।করোনা আক্রান্ত হলে স্বাভাবিকভাবে জনশূন্য হয়ে পড়লে একটি মানুষ সেই সাথে কয়েকটি পরিবার কি দুর্বিসহ জীবন কাটাতে হয় এর একটি স্বাক্ষরিত প্রমান হচ্ছে তিনি।করোনা সম্মুখ যুদ্ধে জয়ী হয়ে তার অভিজ্ঞতা সহ সবাইকে কিভাবে এর থেকে পরিত্রান পাওয়া যায় সবার মাঝে তা উল্লেখ করেছেন। হুবহু তার ফেইসবুক পোস্ট থেকে করোনা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ পোষ্ট তুলে ধরা হলোঃ আমার ফেইসবুক অনেক বন্ধুরা আছেন যারা করোনা থেকে পরিত্রাণের কৌশল সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন তাদের উদ্দেশ্য আজকের পোষ্ট, আমি যেহেতু আক্রান্ত হয়ে আল্লাহ পাকের অশেষ মেহেরবানীতে আরোগ্য লাভ করেছি তাই কিছু উপদেশ হলে করণীয় বিষয়বস্তু সম্পর্কে একটু আলোকপাত করব দয়া করে সবাই শেষ পর্যন্ত পড়বেন উপকারে আসবে। করোনা আক্রান্ত হলে প্রথমত আপনাকে তিন স্তরে ব্যবস্হা নিতে হবে- প্রথমতঃ ভাইরাসের জীবাণু ধ্বংস করতে হবে তার জন্য দরকার ১.দিনে ৪ বার (৫টা,১১টা,৪টা,১০টায়) গরম ভাপ নিতে হবে ২. দিনে ৪বার (৬টা,১০টা,৩টা,৮টায়) হাল্কা গরম পানিতে গারগেল করতে হবে

৩. গরম খাবার (স্যুপ,গরম দুধ,গরম পানি) খেতে হবে ৪. গলা সব সময় ভিজা রাখতে হবে। (ডাক্তারের পরামর্শমত অল্প কিছু ঔষধ, (গ্যাস্টিক,টেনশন,ভিটামিন) খেতে হবে। বারবার হাত ধুয়ে নিতে হবে (তবে ঠান্ডা লাগানো যাবেনা) । দ্বিতীয়তঃ শরীরকে সবল রাখতে হবে যাতে জীবানু কাজ করতে না পারে মারা যায় তার জন্য যা দরকার ১. নিয়মমতো খাবার খেতে হবে (সকালে রুটি,সবজি,ডিম সিদ্ধ, ১১টায় বিস্কুট, দুপুরে মুরগি ভাত,সন্ধ্যা স্যুপ,রাতে খাবার,ঘুমাতে যাওয়ার আগে গরম দুধ, দিনে ২/৩ বার গরম লেবুর সরবত। তৃতীয়তঃ মানসিকভাবে সবল থাকতে হবে এবং আল্লাহর উপর ভরসা রাখতে হবে তার জন্য দরকার ১.পরিবারের সবার সাথে মোবাইলে কথা বলা । ২. ইসলামিক বই পড়া,কুরআন পড়া দুরুদ পড়া ৩. মেডিটেশন করা ও ফুসফুসের ব্যায়াম করা ৷ ৪.আল্লাহ সমস্ত কিছুর মালিক আল্লাহ আমাকে রক্ষা করবেন, আমিন! ধন্যবাদ – (প্রকৌশলী মোঃ বোরহান উদ্দিন, পিআইও, রায়পুরা,নরসিংদী) আসুন সবাই স্বাস্হ্য বিধি মেনে চলি, নিজে সুস্থ থাকি পরিবারের আপন জনকে সুস্থ রাখি। আল্লাহ হাফেজ, হেফাজতের মালিক আল্লাহ, আল্লাহ সবাইকে রক্ষা করুন।
পরিশেষে সবার উদ্দেশ্য বলব-
সামনের দিন যত আসছে করোনা প্রাদুর্ভাব আরোও কঠোর হচ্ছে।সুতরাং ঘরে থাকুন।সুস্থ রাখুন নিজ পরিবারকে এবংপ্রশাসনিক কর্মকাণ্ডে সহযোগীতা করুন। অহেতুক কাউকে ঘর থেকে বের হতে দিবেন না।ভালো থাকুন।।