কিশোরগঞ্জে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে সেমাই উৎপাদন , স্বাস্থ্য ঝুকিতে ভোক্তারা

প্রকাশিত: ৬:৫৩ অপরাহ্ণ, মে ১৭, ২০২০, 524 জন দেখেছেন

কিশোরগঞ্জ(নীলফামারী)প্রতিনিধি :- নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলায় ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে অস্থায়ীভাবে গাজিয়ে উঠেছে সেমাই কারখানা। এসব কারখানার সেমাই শ্রমিকদের নেই কোন করোনা ভাইরাস প্রটেকশন। সম্পূর্ণ অস্বাস্থ্যকর নোংরা পরিবেশে রং মিশিয়ে উৎপাদন হচ্ছে বাহারি রকমের সেমাই। এসব দেখার দায়িত্ব উপজেলা সেনেটারী ইন্সপেক্টরের থাকলেও তিনি রহস্যজনক কারণে নীরব বলে অভিযোগ রয়েছে সচেতন ভোক্তাদের ।

শনিবার সেমাই উৎপাদন অস্থায়ী কারখানা নিতাই খোলাহাটি গ্রামের আল্লাহর দান বাবা মায়ের দোয়া আরমান বেকারী , সদর ইউনিয়নের মুশা গ্রামের শরীফ পাঁচ মিশালী সেমাই কারখানায় গিয়ে দেখা যায়।

এদিকে আবার শ্রমিকরা কোন প্রকার প্রটেকশন ছাড়াই খালিগায়ে সেমাইর খুস্তি তৈরী করেছে। এসময় শ্রমিকের কপাল থেকে টপটপ করে ঘাম পড়ছে ওই খুস্তিতে । আল্লাহর দান বাবা মায়ের দোয়া আরমান বেকারীর মালিক মইনুল ইসলাম বলেন আগে আমি অন্যের কারখানায় কারিগর হিসাবে কাজ করতাম তিন বছর থেকে নিজেই কারখানা দিয়ে সেমাই তৈরি করছি। পণ্যের মান নির্ণয়কারী প্রতিষ্ঠান স্ট্যান্ডার্স টেষ্টিং ইনষ্টিটিউশন (বিএসটিআই) কোন অনুমোদিত কাগজ আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন কাগজের কি দরকার ।

গত বছর ম্যাজিস্টেট এসে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছিল এতে সমস্যা নেই । নিতাই বৈদ্যপাড়া দরবার বেকারিতে গিয়ে দেখা যায় , ৫ -৭ জন শিশু শ্রমিক কাজ করছে । এসময় শিশু শ্রমিক সুমনের পায়ে গরম তেল পড়ে পা পুড়ে গিয়ে মারাত্মকভাবে আহত হয়

উপজেলা সেনেটারী ইন্সপেক্টর জিল্লুর রহমান জানান, দুটি কারখানার মালিক বিএসটিআই অফিসে সনদের জন্য আবেদন করছে। কারখানার মালিকরা ক্ষতিকর রং মিশিয়ে থাকলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানাবো ।