করোনার ঝুকিতে রাজারহাট উপজেলা

প্রকাশিত: ৮:০০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১২, ২০২০, 876 জন দেখেছেন

রাশেদ রাজারহাট উপজেলা প্রতিনিধি

কুড়িগ্রাম জেলার অগ্রভাগে রাজারহাট উপজেলার অবস্থান। রাজারহাট উপজেলা হতে লালমনিরহাট জেলার সদরের দুরত্ব মাত্র ১০ কিলোমিটার এবং তিস্তা নদীর ওপারে গাইবান্ধা জেলা। ইতিমধ্যে গাইবান্ধা ৫ জন এবং লালমনিরহাট জেলায় ১ জন ব্যক্তির দেহে কোভিড-১৯ সনাক্ত হয়েছে। লালমনিরহাট সদর উপজেলায় কোভিড-১৯ আক্রান্ত ব্যক্তির বাড়ি গোকুন্ডা ইউনিয়ন (তিস্তা)। তিস্তা রাজারহাট উপজেলার প্রবেশদ্বার হওয়ায় সচেতন মহল কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলাকে করোনার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছেন।

এছাড়া কুড়িগ্রাম জেলা দেশের সবচেয়ে দরিদ্রতম এলাকা হওয়ায় বেশ কিছু লোক ঢাকা, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ ও দেশের বাহিরে কাজ করে। বর্তমানে তারা ছুটিতে বাড়িতে অবস্থান করায় নিজ নিজ এলাকাকে আরও ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে। রাজারহাট উপজেলা প্রশাসন সচেতনতা মূলক প্রচার, জীবাণুমুক্ত স্প্রে, করোনা প্রতিরোধে কন্ট্রোলরুম খোলাসহ গণজমায়েত এরানোর জন্য সন্ধ্যার আগেই হাট-বাজার গুলো বন্ধ করে দিচ্ছে।
কিন্তু গ্রামাঞ্চল গুলোত অনেকেই সামাজিক দুরত্ব মেনে চলছে না বলে খবর পাওয়া গেছে। সচেতন মহল মনে করে এখনই রাজারহাট উপজেলাকে লকডাউন করা উচিৎ। এ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যাপক আলোচিত হচ্ছে।

আজ ১২ এপ্রিল (রবিবার) উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কন্ট্রোল রুমে দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তার জনাব শাহ আলম সমবায় অফিসার এর সাথে কথা বলে জানা যায় খুব শিগগিরই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানা যাবে। প্রসঙ্গত রাজারহাট উপজেলায় এ পর্যন্ত করোনা সন্দেহে ৫ ব্যক্তির রক্তের নমুনা পরীক্ষা করে কারো শরীরে কোভিড-১৯ এর জীবাণু পাওয়া যায়নি