কিশোরগঞ্জে রোপণ করা আলুর ন্যায্য দাম নিয়ে চিন্তিত কৃষকরা

প্রকাশিত: ৫:১২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৭, ২০২০, 443 জন দেখেছেন

জয়ন্ত রায় কিশোরগঞ্জ, (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে আগাম আলু রোপণে আলু বীজ সারপাতি কিনাসহ দ্বিগুণ খরচ হওয়ায় আগাম আলুর ন্যায্য দাম নিয়ে হতাশায় ভুগছেন খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের চাষিরা। এবছর অতিবৃষ্টি হওয়ায় আলুর বীজসহ সবকিছুর দাম চড়া হওয়া সত্বেও লোকসানের ঝুঁকি নিয়ে আগাম আলু রোপণ করে আলুর ফলন ও ন্যায্য দাম নিয়ে অনেকটা হতাশায় ভুগছেন খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের সাধারণ আলু চাষি। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, আগাম আলু চাষিরা আলু ক্ষেতের পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী দিন রাত অক্লান্ত পরিশ্রমে আলুর পরিচর্যা করে যাচ্ছেন অত্র এলাকার মেহনতি আলু চাষিরা। বাহাগিলী ইউনিয়নের আলু চাষি আব্দুল মিয়া বলেন, হামরা ইলা গরীব মানুষ বাহে কোনো রকমে সংসার চলে। এবার অনেক আশা করে এক বিঘা জমিতে আলু রোপণ করেছুং( করেছি)। আলুর ফলন ও ন্যায্য দাম না পেলে নিঃস্ব হওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না। ময়নাকুড়ির আলু চাষি আফজাল হোসেন বলেন,এবছর ১ বিঘা জমিতে আলু রোপণ করতে গতবছরের খরচের দ্বিগুণ খরচ হওয়ায় এবছর আলুর ন্যায্য দাম না পেলে কৃষকদের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ার সম্ভাবনা আছে। কেননা, বিঘা প্রতি জমিতে আলুর বীজ লেগেছে প্রায় ৫ থেকে ৬ বস্তা। যার দাম বাজারে ১৫ হাজার থেকে ১৮ হাজার টাকা। তারপর গোবর সার, রাসায়নিক সার, জমি চাষ, পানি সেচ, কামলাসহ প্রায় বিঘা প্রতি জমিতে আলু রোপণ করতে খরচ হচ্ছে প্রায় ৩০ হাজার থেকে ৪০ হাজার টাকা। এই খরচের টাকাসহ লাভ্যাংশ পেতে হলে ভালো ফলনের সঙ্গে ন্যায্য দাম না পেলে কৃষকদের লোকসান গুনতে হবে। একই কথা তুলে ধরেন উপজেলার বিভিন্ন এলাকার আলু চাষিরা। তারা এখন থেকেই আলুর দাম নিয়ে হতাশায় ভুগছেন। কেশবার একাধিক আলু চাষি জানান, আগাম আলু রোপণ করে হঠাৎ টানা বৃষ্টিতে ৩ ভাগের দু’ভাগ আলু বীজ পচে যাওয়ায় একই আলু ক্ষেতে পূনরায় আলুর বীজ রোপণ করতে হয়েছে। এমনিতেই আলু বীজ চড়া দামে কিনে রোপণ করতে হিমশিম তার উপর আলু বীজ পচে যাওয়ায় খরচ অনেক বেশি পড়ে গেছে। যদি আলুর ন্যায্য দাম না পায়, তাহলে বেঁচে থেকেও আমাদের মরার হাল হবে। এব্যাপারে কিশোরগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, কিশোরগঞ্জ উপজেলায় প্রায় ৪ হাজার ১ শত ১৫ হেক্টর জমিতে আলু রোপণ করা হয়েছে। এবছর আলু বীজের দামটা অনেক বেশি হওয়ায় কৃষকদের খরচটাও অনেক বেশি। আশা করছি এবার আগাম আলু রোপণ করে লোকসান না হওয়ারি কথা।