রাজারহাটে প্রেস সচিবের প্রচেষ্টায় চিকিৎসা সরঞ্জামাদি হস্তান্তর

প্রকাশিত: ৪:৫০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২০, 444 জন দেখেছেন

রাশেদ, স্টাফ রিপোর্টার, কুড়িগ্রাম:

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সেরা আবিস্কার,কুড়িগ্রামের কৃতি সন্তান,মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেসসচিব” জনাব এ বি এম সারওয়ার ই আলম সরকার জীবন “ভাইয়ের নিজ জন্মভুমি রাজারহাট সদর হাসপাতালে আন্তর্জাতিক মানের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতের জন্য করোনার প্রাদুর্ভাবের শুরুতে মাস্ক,পিপিই,হ্যান্ডস্যানিটাইজার সরবরাহের পাশাপাশি করোনা রোগীদের জরুরী প্রয়োজনে নিরবিছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহের জন্য একটি “অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর মেশিন সরবরাহের ধারাবাহিকতায় আজ রাজারহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে “কুড়িগ্রাম জেলার সুযোগ্য জেলা প্রশাসক রেজাউল করিম,
সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ হাবিবুর রহমান,
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহিদ ইকবাল সোহওরার্দ্দী বাপ্পী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব নুরে তাসনিম সহ উপজেলা সহকারী ভুমি কমিশনার,অফিসার ইনচার্চ,উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সহ অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার প্রতিনিধি বর্গ সহ সমাজের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধি বৃন্দের উপস্থিতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শাহীনুর রহমান সরদারের হাতে , অক্সিজেন সিলিন্ডার ৩০টি
,অক্সিজেন ফ্লোরোমিটার ৩০টি,অক্সিজেন মাস্ক (বয়স্ক) ১০টি,অক্সিজেন মাস্ক (শিশু) ১০টি,নেজাল কেনুলা ১৫ টি,ইনফারেড থার্মোমিটার ০৫ টি,পালস অক্সিমিটার ০৫ টি মেশিন হস্তান্তর করেন জীবন ভাইয়ের গর্বিত পিতা,প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা, নাজিমখান ইউনিয়ন আওয়ামীগের সভাপতি জনাব আকবর আলী সরকার।

উল্লেখ্য এর আগে করোনা মহামারীর শুরু হতে জেলা ব্যাপী করোনা সুরক্ষা সামগ্রী মাস্ক,পিপিই,গ্লোভস,হ্যান্ডস্যানিটাইজার, সাবান,কর্মহীনদের ত্রান কার্যক্রম প্রভুতি বিতরনের পাশাপাশি কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে দুটি এনআইভি ভেন্টিলেটর ও একটি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর মেশিন এবং পর্যায় ক্রমে ফুলবাড়ী উপজেলার সদর হাসপাতাল ,রাজারহাট সদর হাসপাতাল,উলিপুর ও চিলমারী সদর হাসপাতালে একটি করে অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর মেশিন হস্তান্তর করা হয়েছিলো যা পর্যায় ক্রমে জেলার সব উপজেলায় পৌছে যাবে বলে দায়িত্বশীল সুত্র থেকে জানা গেছে।

এ সব মেশিন ও করোনা সুরক্ষা সামগ্রী কুড়িগ্রামের মত প্রত্যন্ত অঞ্চলে করোনা চিকিৎসায় স্বাস্হ্য সেবা কর্মীদের আরো উৎসাহীত করবে, অত্যাধুনিক চিকিৎসা সেবা পেলে সেবা গ্রহীতাদের আস্থাও বৃদ্ধি পাবে বলে সর্বস্তরের মানুষের ধারনা।

তার পর জেলা প্রশাসক মহোদয় হাসপাতালের পুরো ক্যাম্পাস ঘুরে দেখেন ও ফুড় কর্ণার নামে একটি ভবণের উদ্বোধন করেন।