নওগাঁয় আবারো বাড়ছে বন্যার পানি বনার্তদের দূর্ভোগ চরমে

প্রকাশিত: ৩:৩০ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৫, ২০২০, 803 জন দেখেছেন

নাসির উদ্দিন চঞ্চল (নওগাঁ) জেলা প্রতিনিধি

নওগাঁর মান্দা, সাপাহার ও আত্রাই উপজেলা সহ বেশ কয়েকটি  উপজেলার বন্যা কবলিত এলাকার মানুষের দূর্ভোগ চরমে।জেলা জুড়ে প্রাবাহিত নদ নদী গুলোতে আবারো বাড়তে শুরু করেছে বন্যার পানি।এরি মধ্যে আবরো আত্রাই উপজেলার ভাংগা জাঙ্গাল নামক স্থানে নতুন করে  বেড়ি বাঁধ ভাংঙ্গার খবর জানাগেছে। নতুন করে কোথাও যেন সড়ক বা বাঁধ না ভাংঙ্গে  সেই চিন্তাধারা থেকে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ ও জনপ্রতিনিধি দের নজরদাড়িতে চলছে সড়কের ঝুঁকিপূর্ন  স্থান গুলোতে  বিভিন্ন ভাবে মেরামত ও বাঁধ রক্ষার চেষ্টা।

করোনা মহামরীতে সংকটময় সময় অতিবাহিত করছে প্রায় প্রতিটি  মানুষ। কর্মহীন হয়ে পড়েছেন অসংখ্য কর্মঠো মানুষ। এদিকে প্রকৃতির নিয়মে ঝড়ে পড়া অতিবৃষ্টি সহ উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট এই বন্যা, যেন নির্মম নির্দয়ের প্রতীক। মরার উপর খারার ঘাঁ হয়ে দাঁড়িয়েছে অসহায় কর্মহীন হয়ে পড়া খেটে খাওয়া মানুষের উপর।

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায়। বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রাবাহিত হচ্ছে উপজেলা জুড়ে প্রবাহমান নদ নদীর পানি। আবার কোথাও কোথাও  রয়েছে স্থিতিশীল।পানি বন্দী বানভাসীরা বিশুদ্ধ খাবার  পানি  খাদ্যভাব ও স্যানিটারি ব্যাবস্থাপনা না থাকায়, স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ে চরম মানবেতর জীবন জাপন করছে বলে জানাগেছে ।

এমন সংকটময় পরিস্থিতিতে জেলায় বন্যাকবলিত এলাকার প্রতিটি মানুষের   দাবী ,১. মজবুত বন্যানিয়ন্ত্রণ  বাঁধ নির্মান ও সংস্কার করা।  ২. পুরাতন স্লুইজগেইট গুলো  মেরামত করা। ৩.উপজেলা জুড়ে  গ্রামের ভিতর দিয়ে প্রাবাহিত নদী,  ডারা বা সরকারি  খাল খনন করে সঠিক ভাবে পানির প্রাবাহ নিশ্চিত করা। এই দাবীগুলো যেন প্রাণের দাবীতে রুপ নিয়েছে বন্যাকবলিত এলাকার মানুষ সহ সচেতন মহলের।  এই তিনটি দাবী বাস্তবায়ন করলেই বন্যার ভয়াল থাবা এবং বন্যাকবলিত হয়ে পানিবন্দী মানুষের মানবেতর জীবন যাপন থেকে রক্ষা পাবার জন্য যথেষ্ট মনে করছেন এই জনপদের সকল শ্রেনী পেশার  মানুষেরা ।

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায়। বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রাবাহিত হচ্ছে উপজেলা জুড়ে প্রবাহমান নদ নদীর পানি। আবার কোথাও কোথাও  রয়েছে স্থিতিশীল।পানি বন্দী বানভাসীরা বিশুদ্ধ খাবার  পানি ও খাদ্যভাবে চরম মানবেতর জীবন জাপন করছে।কোথাও কোথাও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কে আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে বেছে নিয়েছেন তারা।  বিভিন্ন স্থানে প্রশাসনের তরফ থেকে ত্রান বিতরণ করা হল তা অপ্রতুল বলে দাবী বন্যাকবলিতদের। গবাদি পশুর চারন ভুমিগুলো ডুবে থাকায়(গো-খাদ্য) গবাদিপশু পাখি খাবার সংকট সহ  নানা সম্যসায় জর্জরিত বানভাসী মানুষেরা।

নিভে গেছে বর্ষা মৌসুমে ফসল চাষের স্বপ্ন প্রদীপ কমপক্ষে ৪ হাজার হেক্টরের অধিক জমিতে তলিয়ে গেছে ফসল ও বীজতলা । বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে অসংখ্য মাছ চাষের পুকুর ভেসে গেছে চাষকৃত পুকুরের মাছ। নির্বাক হয়ে চোখে দেখা ছাড়া কোন উপায় জানা নেই তাদের। লোকসান গুনতে হচ্ছে অসংখ্য মাছ চাষীর।

এমন পরিস্থিতিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তাদের দাবী বাস্তবায়ন করলে এমন দূর্ভোগ থেকে মুক্তি মিলবে বলে মনে করছেন বন্যাকবলিত এলাকার মানুষেরা।